src='https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js'/> নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গেলে করনীয় কি?

নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গেলে করনীয় কি?

আমাদের দেশীয় মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠান নগদ। ডাকবিভাগের অধীনে পরিচালিত হয় এই সেবাটি। আমরা যারা নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা ব্যাবহার করি,তাদের অনেকেই ভুল নাম্বারে টাকা চলে যাওয়ার ভয়ে থাকি। নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গেলে করনীয় কি,সেটা অনেকেই জানিনা। যারা আজকের আর্টিকেল পড়তে এসেছেন তাদের নিশ্চই ভুল নাম্বারে নগদে টাকা চলে গিয়েছে?

নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গেলে করনীয়
নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গেলে করনীয়

যদিও নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে যাবার সম্ভাবনা কম থাকে তবুও কোন কোন ক্ষেত্রে দূর্ঘটনাবসত নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে যায়।
আপনার যদি ভুল নাম্বারে নগদে টাকা চলে গিয়ে থাকে, তাহলে তাৎক্ষণিক বিকাশ কাস্টমার সেন্টার নাম্বার ১৬১৬৭ নাম্বারে ফোন দিয়ে বিষয়টি জানান। তারপর যার নাম্বারে টাকা চলে গিয়েছে সেই ব্যাক্তির সাথে ফোনে যোগাযোগ করুন। মনে রাখবেন, ফোন দিয়ে টাকা আদায়ের জন্য কোনপ্রকার চাপ প্রয়োগ করবেন না। আপনি যদি টাকার জন্য চাপ দেন,তখন উনি আপনাকে মোবাইল ব্যাংকিং প্রতারক ভাববে। তাই টাকা ফেরত পেতে কোনপ্রকার চাপ প্রয়োগ করবেন না।

ফোন দিয়ে ভালোভাবে বুঝিয়ে বলুন। বলুন যে, আপনি আপনার ব্যালেন্স চেক করে আমাকে টাকাটি পাঠিয়ে দিন। সেই ব্যাক্তির কথাবার্তায় যদি মনে হয়, উনি আপনাকে টাকা পাঠাবেনা, তাহলে তাৎক্ষণিক থানায় জিডি করে, সেই জিডি কপি নিয়ে নিকটস্থ নগদ কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে যোগাযোগ করুন। তাছাড়া ডাক বিভাগের অধীনস্থ পোস্ট অফিসে নগদের অনেক সেবা পাওয়া যায়। আপনি যদি নগদের কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারে যোগাযোগ করেন,তখন কাস্টমার কেয়ার আপনার টাকা আদায়ের জন্য সর্বোচ্চ চেস্টাটুকু করবে।

আপনি যদি এমন কোন নগদ নাম্বারে টাকা পাঠিয়ে থাকেন, যে নাম্বারে নগদ একাউন্ট খোলা হয়নি। তাহলে নগদ কল সেন্টার ১৬১৬৭ নাম্বারে অভিযোগ জানালেই তারা টাকা ফেরত আনার ব্যাবস্থা করে দিবে।

মনে রাখবেন, আপনি যে ব্যাক্তির নগদ নাম্বারে ভুলে টাকা পাঠিয়েছেন সেই ব্যাক্তি যদি প্রতারণার ইচ্ছে না থাকে। তাহলে আপনি টাকা আদায় করতে পারবেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কল সেন্টারে অভিযোগ জানানোর প্রয়োজন পড়েনা। ব্যাক্তি ভালো হলে, সেই ব্যাক্তির নৈতিকতা ভালো হলে এমনিতেই টাকা ফেরত পাঠিয়ে দেয়। ব্যাক্তি যদি টাকা পেয়ে সাথেসাথে উত্তোলন করে ফেলে, সেক্ষেত্রে জিডি করা ছাড়া উপায় নেই। জিডি করলে পুলিশ তদন্ত করে সেই ব্যাক্তির ভোটার আইডির তথ্য অনুযায়ী ব্যাক্তিকে খুঁজে বের করবে। তারপর তার কাছ থেকে টাকা আদায়ের সর্বোচ্চ চেস্টা করবে। যদি সাথে সাথে টাকা তুলে ফেলে, তখন সেই প্রতারক ব্যাক্তিকে খুঁজে বের করাটা কস্টসাধ্য ও সময়সাপেক্ষ হয়ে দাঁড়ায়।

যাদের নগদে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গিয়েছে,তারা তাদের করনীয় সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন আশারাখি।

আশাকরি আমাদের আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনার যে তথ্য জানার প্রয়োজন ছিল সেটি জানতে পেরেছেন। কোন জানার বা মন্তব্য থাকলে মন্তব্য করতে পারেন। স্মার্টফোন বিষয়ক নিত্যনৈমিত্তিক অনেকে অজানা তথ্য আমাদের এই সাইটে আপনি পাবেন। নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের Facebook Page লাইক দিয়ে এক্টিভ থাকুন। সাইটের নিচের অংশে আমাদের ফেইসবুক পেইজ দেয়া আছে। সেখানে স্মার্টফোন সম্পর্কিত নিয়মিত নিত্যনতুন আরো অজানা তথ্য জানতে পারবেন।

Previous Post Next Post