src='https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js'/> What is VOLTE||ভোল্ট কি?

What is VOLTE||ভোল্ট কি?

এখনকার বাজারের প্রায় বেশিরভাগ ফোনেই VOLTE সুবিধার কথা বলা হয়ে থাকে। ফোনে ভোল্ট সুবিধা বলতে কি বুঝায় এটাই অনেকেই জানিনা। কিভাবে ফোনের ভোল্ট চালু করতে হবে এটাও আমরা অনেকে জানিনা। আমাদের আজকের আর্টিকেলে ফোনের VOLTE কি আর ফোনে ভোল্ট সুবিধাটির কারনে আপনি কি কি সুবিধা পেতে পারেন সেই বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

What is VOLTE
VOLTE

আমরা যখন বাজার থেকে নতুন স্মার্টফোন কিনি তখন সেখানে কিছুকিছু ক্ষেত্রে বক্সে লিখা থাকে এই ফোনটিতে আপনি VOLTE সুবিধা পাবেন। আমরা শুধুমাত্র এতটুকু বুঝি যে, যেহেতু ফোনে দেয়া হচ্ছে সেহেতু নিশ্চই এটি ভালো কিছু হবে। যদিও ভালো কি সেটা আমরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিশ্চিত নই। অনেকসময় বলা হয় ফোনে 4G VOLTE পাবেন। ফোরজি ভোল্ট কি সেটাও আবার জানিনা। আসলে ফোনের ভোল্ট সুবিধাটি শুধুমাত্র ফোরজি ফোনেই দেয়া হয়। থ্রিজি ফোন ভোল্ট সুবিধা পাওয়া সম্ভব না।

ফোনের ভোল্ট সুবিধা চালু করতে আমাদের করনীয় কি কি সেটা জেনে নিই। আপনি যদি আপনার ফোনে ভোল্ট চালু করতে চান, তাহলে আপনার সিমটি অবশ্যই ফোরজি সিম হতে হবে। আপনার সিম যদি ফোরজি হয়,তাহলে আপনি ফোন কেনার পর, সে কোম্পানির সিমে ভোল্ট চালু করতে চাচ্ছেন, সেই কোম্পানির ফেসবুক পেইজে ম্যাসেজ করবেন। ম্যাসেজ করে আপনার ফোনের নাম ও মডেল নাম্বার লিখে বলবেন যে, আপনি আপনার ফোনে ভোল্ট সেবা চালু করতে চাচ্ছেন। সেখানে তারা আপনাকে ভোল্ট চালু করার জন্য একটি লিংক দিবে। সেই লিংকে ভোল্ট চালু করার সব প্রক্রিয়া সুন্দরভাবে বলা থাকবে। তারপরেও যদি না বুঝতে পারেন তাহলে আপনার সিমের কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারে নিয়ে যেতে পারেন অথবা আপনি কাস্টমার সেবা সেন্টারে ফোন দিয়ে জানতে পারেন। এখন আপনাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে,আমরা কেন এটি আপনাদের দেখাইনি। আসলে আপনার ফোনের মডেল কি বা আপনি কি মডেলের কোন ফোন ব্যাবহার করেন সেটি আমরা জানিনা। আলাদা আলাদা ফোনের আলাদা আলাদা সিস্টেম।

এবার আসি, ফোনে ভোল্ট সেবা চালু করার সুবিধা কি কি সেগুলার আলোচনায়। আপনার ফোনে VOLTE সেবা চালু করলে প্রথমত যে সুবিধা পাবেন সেটি হলো আপনার ব্যাটারি সাশ্রয়ী হবে। ফোনে ভোল্ট চালু থাকলে ব্যাটারি নেটওয়ার্কিং যে চার্জ ক্ষয় হতো সেটা অনেকাংশে কম হয়। এটি ভোল্ট সুবিধা চালু করার অনেক বড় একটি সুবিধা। দ্বিতীয়ত, আপনার ফোনে ভয়েজ কল,মানে কাউকে ফোন দিয়ে কথা বলার ক্ষেত্রে আপনি ক্রিস্টাল ক্লিয়ার সাউন্ড পাবেন। কোনপ্রকার নেটওয়ার্কিং ইসুৎ হবেনা। ফোনেত কথাগুলো একদম পরিস্কার শুনতে পাবেন। এমনকি ফোনের ম্যাসেঞ্জার কল বা ইন্টারনেট কলে আপনি যার সাথে কথা বলছে সেও যদি ভোল্ট সেবাটি চালু রাখে তাহলে উভয়েই একদম পরিস্কার কথা শুনতে পাবেন। স্মার্টফোন কোম্পানিগুলোর দাবী যে, ফোনের ভোল্ট সার্ভিস চালু থাকলে ইন্টারনেট স্পিডে কিছুটা উন্নতি হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটি সত্য আবার কিছু ক্ষেত্রে সত্য নাও হতে পারে। তবে এটা ঠিক যে, ফোনের ভোল্ট সেবা চালু থাকলে উপকার ব্যাতিত ক্ষতি নেই।

আশাকরি আমাদের আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনার যে তথ্য জানার প্রয়োজন ছিল সেটি জানতে পেরেছেন। কোন জানার বা মন্তব্য থাকলে মন্তব্য করতে পারেন। স্মার্টফোন বিষয়ক নিত্যনৈমিত্তিক অনেকে অজানা তথ্য আমাদের এই সাইটে আপনি পাবেন। নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের Facebook Page লাইক দিয়ে এক্টিভ থাকুন। সাইটের নিচের অংশে আমাদের ফেইসবুক পেইজ দেয়া আছে। সেখানে স্মার্টফোন সম্পর্কিত নিয়মিত নিত্যনতুন আরো অজানা তথ্য জানতে পারবেন।

Previous Post Next Post