src='https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js'/> মোবাইলের আলো থেকে চোখ রক্ষা করার উপায়

মোবাইলের আলো থেকে চোখ রক্ষা করার উপায়

মোবাইলের ডিসপ্লের আলো আমাদের চোখের জন্য কতটা ক্ষতিকর সেটা আমরা সবাই কমবেশি জানি। আমাদের সবার জন্য আমাদের নিজের চোখ অনেক বেশি মূল্যবান। সেই মূল্যবান চোখ যদি আমাদের ফোনের ডিসপ্লের কারনে নস্ট হয়ে যায়,তাহলে তার থেকে বড় কস্টের কারন আর কি হতে পারে? আমরা সকলেই জানি যে, মোবাইলের ডিসপ্লের আলো আমাদের চোখের জন্য তেমন ভালো নয়। সরাসরি মোবাইলেত ডিসপ্লের যে আলো আমাদের চোখে এসে পড়ে,তা আমাদের চোখের জন্য ক্ষতিকর। তাছাড়া দীর্ঘক্ষন মোবাইলের ডিসপ্লেতে একনজরে তাকিয়ে থাকার ফলে সেটি আমাদের চোখের জন্য ভয়াভহ ক্ষতি ঢেকে আনতে পারে। বর্তমানের আপগ্রেডেশন মোবাইলগুলোতে ডিসপ্লেতে অনেক পরিবর্তন আনা হয়েছে। কোন কোন ফোনে আইপিএস ডিসপ্লে আনা হয়েছে। আবার কোন কোন ফোনে সুপার এমোলেড বা এমোলেড ডিসপ্লে সুবিধা আনা হয়েছে। এখন আসি, মোবাইলের ডিসপ্লের আলো থেকে চোখ রক্ষা করার কয়েকটি উপায় জেনে নিইঃ

Mobile Display protect eye
মোবাইলের আলো থেকে চোখ রক্ষা করার উপায়

★ বর্তমানে আমরা অনেকেই ছোট বাচ্চাদের হাতে ফোন দিয়ে রাখি। অল্প বয়সের বাচ্চাদের হাতে ফোন দেয়াটা অনেক বেশি ক্ষতিকর। 
★ বাচ্চাদের চোখের সামনে দীর্ঘক্ষন টিভি বা ফোন যেকোন কিছুর আলোই ক্ষতির কারন হয়ে দাঁড়াতে পারে। যদিও টিভি বা ফোনের সামনে যেতে বাচ্চাদের অনুমতি দিতেই হয়,তাহলে অবশ্যই সেখানে যাতে আশেপাশে পর্যাপ্ত আলো থাকে সেদিকে লক্ষ রাখতে। অন্ধকার কক্ষে বাচ্চাদের ফোন ব্যাবহার করতে দিবেন না।
★ আপনার মোবাইলে যদি কোন গ্লাস প্রোটেকশন না থাকে তাহলে সেটিতে অবশ্যপি ভালো মানের কোন গ্লাস প্রোটেকশন লাগিয়ে নিতে পারেন।
★ গ্লাস প্রোটেকশনের মধ্যে বাজারে নতুন এসেছে এন্টি ব্লু নামে একটি গ্লাস প্রোটেকশন। সেই এন্টি ব্লু গ্লাস প্রোটেকশন মোবাইলের ক্ষতিকর আলো থেকে আপনার চোখকে প্রায় অনেকটাই সুরক্ষা দিবে। কারন এই গ্লাস প্রোটেকশনের রং অনেকটা নীল রং মনে হবে। তবে ফোনে লাগানোর পরে আর সেটি বুঝতে পারবেন না।
★ মোবাইলের গোরিলা গ্লাসের চেয়ে, টেম্পার্ড গ্লাস বা কার্ভড গ্লাস প্রোটেকশন চোখের জন্য বেশি ভালো হবে।
★ মোবাইল ফোন কেনার আগের ফোনের ডিসপ্লেটি কিসের সেটি নিশ্চিত হয়ে নেয়া চেস্টা করবেন। নূন্মতম আইপিএস ডিসপ্লের ফোন কেনার চেস্টা করবেন।
★ কামদামী ও বড় ডিসপ্লে ওয়ালা ফোন কেনা থেকে বিরত থাকবেন। কমদামে বড় ডিসপ্লেযুক্ত ফোনের ডিসপ্লে কোয়ালিটি ততটা ভালো হয়না। সেগুলা আমাদের চোখের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।
★ বর্তমান বাজারের এমোলেড ডিসপ্লেকে চোখের জন্য ভালো ডিসপ্লে হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। যদিও অনেকের মতে এমোলেড ডিসপ্লে ফুল ব্রাইটনেসে চোখের ক্ষতি করতে পারে।
★ অন্ধকার রুমে ফোন চালাবেন না। অন্তত কোন লাইট জ্বালিয়ে নিবেন। অন্ধকারে ফোন চালালে তখন আমাদের চোখের জন্য সেটি বেশি ক্ষতির কারন হয়ে দাড়ায়।
★ ফোনের ব্রাইটনেস সবসময় মাঝারি বা মাঝারি থেকে কম ড়াখার চেস্টা করবেন। আর অবশ্যই ফোন কোন না কোন গ্লাস প্রোটেকশন থাকলে ভালো হয়। কারন ফোনের গ্লাস প্রোটেকশন আপনার ফোনের ডিসপ্লের আলোগুলো সরাসরি আপনার চোখে আসতে বাধা প্রদান করে থাকে।
★ একটানা দেড় ঘন্টার বেশি ফোনের চ্যাট করা বা ডিসপ্লের দিকে তাকিয়ে থাকার কাজ করবেন না। মাঝেমধ্যে কাজের মাঝে বাহিরে তাকাবেন।
★ রাতেবেলা ফোন ব্যাবহার করার সময় অবশ্যই রুমের লাইট জ্বালিয়ে ফোন ব্যাবহার করার চেস্টা করবেন। অন্ধকার রুমে কখনোই অতি প্রয়োজন ব্যাতিত দীর্ঘক্ষন ফোন ব্যাবহার করবেন না।

আশাকরি আমাদের আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনার যে তথ্য জানার প্রয়োজন ছিল সেটি জানতে পেরেছেন। কোন জানার বা মন্তব্য থাকলে মন্তব্য করতে পারেন। স্মার্টফোন বিষয়ক নিত্যনৈমিত্তিক অনেকে অজানা তথ্য আমাদের এই সাইটে আপনি পাবেন। নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের Facebook Page লাইক দিয়ে এক্টিভ থাকুন। সাইটের নিচের অংশে আমাদের ফেইসবুক পেইজ দেয়া আছে। সেখানে স্মার্টফোন সম্পর্কিত নিয়মিত নিত্যনতুন আরো অজানা তথ্য জানতে পারবেন।

Previous Post Next Post